বৌদির স্নানের ভিডিও তুলে ফেসবুকে পোস্ট করে দেওর, তারপর যা হল…

1
22353

কথায় বলে বৌদি হল মায়ের মতো, সেকথা বর্তমানে কেউ মানে না। তাও এখন দেওর ও বৌদির সম্পর্ক দিদি ও ভাইয়ের মতো। বৌদির দিকে খারাপ নজরে দেখা খুব খারাপ ব্যাপার। কিন্তু এমনই সাংঘাতিক খারাপ কাজ করলো এক যুবক। অনেক ক্ষেত্রে নিজের স্বামীর ওপর সন্তুষ্ট না হয়ে অনেক মহিলা অন্য পুরুষে মজে। অন্য পুরুষের সাথে অবৈধ সম্পর্কে জড়ায়।

অনেক ক্ষেত্রে দেওরের ভালো লাগা তৈরী হতে থাকে বৌদির ওপর। তারপর সেই সম্পর্ক সব বাধা ভেঙে সব নিয়ম ভেঙ্গে দিতে চায়। কিছু ক্ষেত্রে দুজনের সম্মতি থাকে আবার কিছু ক্ষেত্রে দুই পক্ষের সম্মতি থাকে না। আর যখনই কেউ পিছিয়ে আসতে চায় তখন থেকেই জন্ম নেয় রাগ।

আর সেই রাগের যে কি ভয়ঙ্কর পরিণতি হতে পারে সেটাই আজ পরবেন। যে ছেলেটির কথা বলবো তার নাম হল বিমল। বছর দুই আগে বিয়ে করে ঘরে নতুন বউ নিয়ে আসে বিমলের দাদা। বছর ঘুরতে না ঘুরতেই বিমলের কু-দৃষ্টি পড়ে তার বৌদি মালতীর উপর।

বিমল কিছুদিন পড়ে তার বৌদিকে খুব নোংরা প্রস্তাব দেয়। কিন্তু মালতী তাতে রাজি হয় না। খুব সুখেই ছিল মালতী তার স্বামীর সঙ্গে। সুতরাং তার দেওরের সঙ্গে সম্পর্ক তৈরী করা ভালো চোখে দেখেনি মালতী। তাই সে বার বার প্রত্যাখ্যান করতে থাকে বিমলকে।

বিমল দিনের পর দিন সেই অপমান মেনে নিতে পারেনি। অনেক দিন ধরে এই অপমান সহ্য করে একদিন সে সিদ্ধান্ত নেয় মালতীকে বিপদে ফেলার। একদিন সে মালতীর স্নান করতে যাওয়ার আগে বাথরুমে মোবাইলের ক্যামেরা অন করে রেখে দিয়ে আসে।

আর মালিতীর স্নানের সমস্ত ভিডিও উঠে যায় মোবাইলে। শুধু এই টুকুতেই থেমে থাকেনি সে। সেই ভিডিও আপলোড করে দেয় ফেসবুকে। আর ভিডিওটি ভাইরাল হতে খুব বেশি সময় নেয় না। ভিডিও আপলোড হওয়ার ব্যাপারে বিমলের দাদা বা তার বাড়ির কেউ কিছু জানতো না।

একদিন এক বন্ধু তার দাদাকে সেই ভিডিও দেখায়। তারপর সে সব জানতে পেরে বাড়ি ফিরে এসে খুব মারধোর করে বিমলকে। তাকে ঠেলে ফেলে দিয়ে মাথা ফাটিয়ে দেয়। সেই জায়গায় পুলিশ এসে উপস্থিত হয়। তারপর মালতী পুলিশকে শুরু থেকে সমস্ত কথা বলে। পুলিশ সব শুনে বিমলকে গ্রেফতার করে।

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here