ঘরোয়া পদ্ধতিতে তেজপাতা দিয়ে কীভাবে নিজের দাঁত ঝকঝকে করবেন জেনে নিন এক্ষুনি…

0
3206

কথায় বলে সুন্দর মুখের জয় সর্বত্র। আর এই সুন্দর মুখ অসম্পূর্ণ যদি তাতে সুন্দর হাসি না থাকে। আর সুন্দর হাসি তখনই আসে যখন দাঁতের যথাযথ যত্ন নেওয়া হয়। আপনার দাঁত যত সুন্দর ও পরিস্কার থাকবে আপনার আত্মবিশ্বাসও হবে ঊর্ধ্বগামী। হাসুন অবশ্যই মন খুলে তবে তার আগে দাঁত ঝকঝকে হওয়া খুব প্রয়োজন। হলুদ ছোপ ধরা দাঁত কখনই কাম্য নয়। দুর্গন্ধ যুক্ত দাঁত তো একেবারেই অপছন্দের।

ঝকঝকে দাঁত পাবার জন্য যেসব বিজ্ঞাপন রোজ টিভির পর্দায় দেখেন সেসব ব্যবহার করে সবসময় উপকার তো মেলে না। উল্টে হাজার রকম বাজারি জিনিস ব্যবহার করে হয় পয়সার শ্রাদ্ধ। পুরনো দিনের মানুষ জন ঘরোয়া অনেক রকম জিনিস ব্যবহার করতেন যাতে শরীরেরও উপকার হত আর টাকাও বাঁচত।

তেজপাতা এমন একটি জিনিস যা আমাদের সকলের ঘরে থাকে আর এর দামও খুব কম। রান্নার অন্যতম উপকরণ হবার কারণে বাড়িতে সব সময় মজুত থাকে এটি। বিশেষ বিশেষ রান্নায় দিলে সে তরকারির স্বাদ বাড়ায় তেজপাতা, তা আমরা সকলেই জানি।

তবে তেজপাতা যে দাঁত পরিস্কার করতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে তা আমাদের অনেকেরই অজানা। তাহলে দেখে নেওয়া যাক কিভাবে তেজপাতা দিয়ে বাড়িতে বসে দাঁতের যত্ন নেবেন।

যা যা লাগবে ঃ তেজপাতা ৪টি (কাঁচা বা শুকনো সব রকমেই চলবে), কমলা ও লেবুর খোসা (তেজপাতার সম পরিমাণ নিতে হবে) বা যেকোনো টক ফল, লবঙ্গ ২/৩ টি (মুখে দুর্গন্ধের সমস্যা বা মাড়িতে ব্যথা থাকলে)

প্রণালিঃ তেজপাতা বেটে নিয়ে, মিহি করে নিন, কমলা বা লেবুর খোসা ভালোভাবে শুকিয়ে লবঙ্গের সাথে মিশিয়ে গুঁড়ো করে নিন। সব উপকরণ নুনের সাথে মিশিয়ে নিন। ফলের খোসা শুকিয়ে নেয়া জরুরী, কাঁচা অবস্থায় তা কিন্তু দাঁতের ক্ষতি করবে।

ব্যবহার করে দেখুন এই মিশ্রণ, উপকার পেতে বাধ্য। তবে রোজ এই মিশ্রণ দিয়ে দাঁত না মাজাই ভালো। এই গুঁড়োটি সামান্য জলের সাথে মিশিয়ে সপ্তাহে অন্তত ৩ দিন দাঁত মাজুন। খুব বেশি ব্যবহারে হিতে বিপরীত হতে পারে। তাই এখন মন খুলে হাসিতে আর অসুবিধা নেই। যত্ন নিন দাঁতের আর আপনার কাছের মানুষকে জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here