যে পাঁচটি অঙ্গ বড় হলে মেয়েদের সবসময় সৌভাগ্যবতী ভাবা হয়, জানেন কি ?

0
35661

আমাদের দেশে মেয়েদের একটা আলাদাই স্থান রয়েছে। সবাই মেয়েদের দেবী রূপে পূজো করে। কারন মেয়েদের মধ্যেই রয়েছে মাতৃরূপ। এই বিশ্বে মেয়েরা না থাকলে কোন প্রাণের সৃষ্টি হতনা। মানুষ্য জাতি নিমিষে বিলুপ্ত হয়ে যেত। নারী হল প্রকৃতি, নারীই হল সৃষ্টি। কিন্তু আমাদের বর্তমান সমাজের এমন অবস্থা যে মেয়ে সন্তান কেউ চায়না।

কিন্তু বিয়ে করার সময় ছেলেরা আর তার পরিবার একটা সুন্দর মেয়েই খোঁজে। কি অদ্ভুত তাই না? একজন নারী হয়েও অনেকেই নিজের বংশরক্ষার জন্য পুরুষ সন্তানই চায়। অথচ সে নিজে একটা মেয়ে। আমাদের সমাজ যতই উন্নত হোক না কেন কিছু কিছু মানুষ এখনও আছে যারা ভাবে মেয়ে সন্তান হওয়া কোন অভিশাপের থেকে কম কিছু না।

শুধুমাত্র কন্যা সন্তান জন্ম দেওয়ার জন্য আজও অনেক গৃহবধূকে অপয়া বদনাম শুনতে হয়। এমন জায়গাও আছে যেখানে কন্যা সন্তান জন্মালে শোক পালন করা হয়, যে জন্ম দিয়েছে তাকে ঘরছাড়া করা হয়। আবার কিছু জায়গায় কন্যা সন্তান জন্মালে তাকে পূজো করা হয়। সে যৌবনে পদার্পন করলে তাকে নিয়ে অনুষ্ঠান করা হয়। কি বিচিত্র এই সমাজ!

মেয়েদের মধ্যে এমন কিছু লক্ষণ আছে যা কোন মেয়ের মধ্যে থাকলে তাকে সৌভাগ্যবতী বলে মনে করা হয়। মেয়েদের নির্দিষ্ট কিছু অঙ্গ বড় হলে তাকে শুভ বলে মনে করা হয়। আসুন জেনে নেওয়া যাক কি কি সেই অঙ্গ…

১। বড় চোখ ঃ- মেয়েদের চোখ বড় হলে এমনিই তাদের সুন্দর দেখতে লাগে। আর এই সব মেয়েদের আলাদা গুন থাকে। এরা তাদের স্বামীকে খুব ভালোবাসে। যে বাড়িতে এরা বউ হয়ে যায় সেই বাড়িতে ধন সম্পত্তির আধিক্য থাকে।

২। লম্বা নাক ঃ- যে সব মহিলাদের নাক লম্বা টিকালো হয় তাদের সৌভাগ্যবতী মনে করা হয়। তাদের সব রকম সমস্যা শান্ত মাথায় সমাধান করার ক্ষমতা থাকে। এদের টাকা খরচ করার প্রবণতা থাকে, তবে তারা কখনই বাজে খরচ করেন না।

৩। লম্বা আঙ্গুল ঃ- যে সব মেয়েদের আঙ্গুল লম্বা হয় তারা অত্যন্ত বুদ্ধিমতী হয়। তারা লেখাপড়াতেও খুব ভালো হয়। এই ধরণের মেয়েরা টাকা পয়সা কম খরচ করে এবং টাকা পয়সা পেলে চেষ্টা করে তা কিভাবে বাড়ানো যায়।

৪। লম্বা চুল ঃ- যেসব মেয়েদের লম্বা চুল থাকে তাদের পরিবারের জন্য খুব ভাগ্যবতী মনে করা হয়। এই ধরণের মহিলারা যে পরিবারে যান সেই পরিবারে কখনোই টাকা-পয়সার অভাব হয়না।

৫। লম্বা গলা ঃ- যে সব মেয়েদের লম্বা গলা তারা খুব ভাগ্যশালী। যে বাড়িতেই এরা যায় সেখানে খুশির ভাণ্ডার নিয়ে যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here