ট্রেনের ৩ জনের সিটে আর বসা যাবেনা ৪ জন…

0
14465

এক স্থান থেকে অন্য স্থানে যাবার জন্য আপামর দরিদ্র জনসাধারণের জন্য গান্ধীজী পদব্রজে মানে সোজা বাংলায় হেঁটে যেতে বলতেন। বিভিন্ন অভিযান তিনি সম্পন্ন করেন পায়ে হেঁটেই। তা বলে কি দৈনন্দিন প্রয়োজনে বা শহর থেকে ছুটি কাটাতে দূরে যেতে হলে আমরা হেঁটে পাড়ি দেবো ? বাস, ট্রাম, ট্রেন এইসবের সাহায্য তো নিতেই হবে।

সমস্ত যানবাহনের মধ্যে বেশিরভাগ মানুষের প্রিয় ট্রেন যাত্রা। একটু দুরের যদি যাত্রা পথ হয় তবে ট্রেনের জুড়ি মেলা ভার। এই ট্রেন যাত্রা নিয়ে মানুষের রোম্যান্টিসিজমেরও শেষ নেই। বলিউড থেকে টলিউডের গানের দৃশ্যে আমরা দেখতে পাই এই যানের ভূমিকা।

ভারতবাসী হিসেবে আমরা গর্বের সাথে বলতেই পারি যে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় রেলের নেটওয়ার্ক এই ভারতেই। ছুটি কাটাতে যাওয়া থেকে শুরু করে রোজকার যাতায়াত প্রতি ক্ষেত্রেই ট্রেন অন্যতম সেরা মাধ্যম। লোকাল ট্রেন হোক বা এক্সপ্রেস সব ট্রেন যাত্রাই আরামদায়ক।

তবে রোজকার অফিস যাত্রীদের কাছে এই যাত্রা সবসময় কি সুখকর? না তা হয়ত নয়। লোকাল ট্রেনের ভিড়ের ঠ্যালায় কতরকম যে খারাপ অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হতে হয় তা একমাত্র ভুক্তভুগীরাই জানেন। ঝগড়া ও কথা কাটাকাটি প্রায় মারপিটের পর্যায়ও পৌঁছায়। দাবি আমি বসতে পারছি না।

ট্রেনের ৩ জনের সিটে বসেন ৪ জন। আর ৪ নম্বরে যিনি বসেন তার অবস্থা হয় তথইবচ। না পারেন সিটের মায়া ছেড়ে উঠতে না আরাম করে বসতে। সরে বসতে বললে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে মানুষ নড়ে বসে।

কপালে দুর্ভোগ থাকলে ঝগড়া লেগে যায় মাঝে মধ্যেই। তাই অদৃষ্টকে দোষারোপ করা ছাড়া কিছুই থাকে না হাতে। উপদেশ হিসেবে এও শুনতে হয় যে ৪ নম্বরে বসলে অমন অসুবিধা একটু সহ্য করতেই হয়।

এর ৪ নম্বরে বসা মানুষদের দুঃখের দিন শেষ হতে চলেছে, কারণ ৩ জনের সিটে ৪ জন বসা সম্পূর্ণ ভাবে নিষিদ্ধ করতে চলেছে রেলমন্ত্রক। ইচ্ছে হলে আপনি বসতেই পারেন ৪ নম্বরে সেক্ষেত্রে টাকার ব্যাগে রেখে দিন অতিরিক্ত কিছু নোট কারণ হতে বাধ্য আপনার জরিমানা।

কবে থেকে এই নিয়ম কার্যকরী হতে চলেছে সে ব্যাপারে ইঙ্গিত মেলেনি এখনো। তবে ট্রেন যাত্রীদের জন্য কি আসছে সুখের দিন? নাকি অকুল পাথারেই থাকবে সুখ?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here