এক সাধারণ মানুষের চাঁদ ছোঁওয়ার স্বপ্ন ও একটি বাংলা সিনেমা…

0
1780

প্রথম সিনেমা ছিল মালাবদল। সেখান থেকে সম্প্রতি সুন্দরী। অনেকখানি পথ হেঁটেছেন রাজ মুখার্জী। দেখেছেন দর্শকদের আস্তে আস্তে বদলে যেতে। দর্শকদের মতন যদি ছবি না বানানো যায় তাহলে পাওয়া যায় না প্রযোজক। আর এখন দর্শকেরাও চাইছেন মাল্টিপ্লেক্সে দেখার মত সিনেমা। আগেকার দিনের মত গ্রামের দর্শক এবং শহরের দর্শক এর ভাগ এখন আর নেই। এখন সবাই হয়ে গেছেন দর্শক। স্মার্ট যুগের হাওয়া গায়ে লেগে সবার হাতে স্মার্ট ফোন এখন হাতের মুঠোয় নিয়ে এসেছে গোটা পৃথিবী। সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে এখন আর যে কোন সিনেমা দেখে দর্শক ভাল বলবেন না। তারা এখন চান একটা টানটান গল্প। আর এই টানটান গল্পের বাজারে দাঁড়িয়ে পরিচালকের একমাত্র লক্ষ্য কি করে সবচেয়ে বেশী সংখ্যক দর্শক আসতে পারে সিনেমা হলে। কি করে উঠতে পারে প্রযোজকের পুরো পয়সা। এই মানসিকতার মধ্যে দাঁড়িয়ে কি হারিয়ে যায় ভাল সিনেমা বানানোর ইচ্ছা? একদমই নয় । কিন্তু মুশকিল আসতে পারে অনেক।একটা সিনেমা পুরোপুরি নির্ভরশীল দর্শকের উপর। ভালো সিনেমাও হারিয়ে  যেতে পারে দর্শকদের দৃষ্টিভঙ্গির জন্য। ঠিক যেমন শতাব্দীর গল্প সিনেমাটি। পরিচালকের নিজস্ব পছন্দের তালিকায় থাকা এই সিনেমাটিতে দেবশ্রী রায়ের অসামান্য অভিনয় দর্শকের টেনে আনতে পারেনি সিনেমা হলে।কিন্তু অভিনয়ের গুণে সিনেমাটি হয়ে উঠেছিল অনন্য।  টিকে থাকার এই বাজারে যেটা সবচেয়ে বেশী দরকারী সেটা হল দর্শকের চোখে পড়া। সেটা একমাত্র ভালো সময় থাকলেই সম্ভব। সময় হয়ে উঠতে পারে পরিচালকদের ভালো বন্ধু অথবা শত্রু। সৎ , পরিচ্ছন্ন পরিবেশের মধ্যে কাজ যদি কেউ করে যেতে পারেন তাহলে তাদের কাজই তাদের নিয়ে যাবে সাফল্যের দিকে। এমনই বলছেন রাজ। তবে এখনও নিজের সবচেয়ে প্রিয় ছবি এখনো বানাননি রাজ।এমনটাই অনেক ক্ষেত্রেই তাকে করতে হয়েছে প্রোডিউসারের সাথে কম্প্রোমাইজ। চেষ্টা করেছেন মানিয়ে নেওয়া যায় যতটুকু। কিন্তু থামেন নি কখনো। সম্প্রতি তিনি করেছেন সুন্দরী। ডিসেম্বরে রিলিজ করবে সিনেমাটি।এই ছবিটি রাজ করতে চেয়েছেন একেবারেই ইয়ং জেনারেশনের জন্য। তার আগের সিনেমা ‘চল কুন্তল’ ছিল একটু অতীতপ্রেমী জেনারেশনের জন্য। এই সিনেমায় সেই ব্যাপারটা থেকে বেরিয়ে এই প্রজন্মের গল্পই বলতে চেয়েছেন রাজ।

সাথে পেয়েছেন রাজপাল যাদবের মত একজন অভিনেতাকে মুখ্য ভূমিকায়। একজন শিল্পী বা অভিনেতা কিভাবে মিশে যান চরিত্রের সাথে সেটা বোঝা যায় রাজপালকে দেখে।বিশ্বনাথ বসু, পরাণ বন্দ্যোপাধ্যায় সকলে সামলেছেন তাদের নিজেদের চরিত্র। তাই নতুন সিনেমা নিয়ে রাজ খুব আশাবাদী। আপনারাও অপেক্ষায় থাকুন। এই ডিসেম্বরেই আসতে চলেছে সুন্দরী আপনাদের কাছের সিনেমা হলে। ভালো ছবির পাশে থাকুন যাতে মানুষ গল্প বলতে পারে অনেক ভালো করে

 

 

 

 

 

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here