সোমবার এই ছোট্ট মন্ত্রটি বলে শিবলিঙ্গে দুধ ও গঙ্গা জল ঢালুন, মনের সকল ইচ্ছা পূরণ হবে…

0
24878

আমাদের জীবন সাধারণত ভালো মন্দ মিলিয়ে চলে। কখনো ভালো তো কখনো মন্দ। কিছু দিন ভালো ভাবে কাটার পর যখন আমাদের মনে হয় বোধয় সব খারাপ আমাদের জীবন থেকে দূর হয়ে গেল, ঠিক তখনই এমন কিছু সাংঘাতিক বিপদের মুখোমুখি হতে হয়, আমাদের তখন মনে হয় পুরো পৃথিবীটাই যেন অচেনা হয়ে গেল। মন ভেঙ্গে যায়, কোন রাস্তা খোলা থাকেনা।

তখন একমাত্র ভগবান ছাড়া আর কিছু মনে আসেনা। মনের সাথে সাথে শরীরের অবস্থাও ক্রমশ খারাপ হতে থাকে। শুধু একটাই উপায় থাকে, আর সেটা হল ভগবানের স্মরন করা। শুধুমাত্র ভগবানকে স্মরণ করে বলতে ইচ্ছা করে “হে ভগবান এমন কি কোন উপায় নেই যাতে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পারি।”

ধীরে ধীরে আমরা জীবন থেকে আসা হারিয়ে ফেলি, জীবন বিমুখ হয়ে পরি। কেউ কেউ দুঃখে কষ্টে আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়, আবার কেউ দুঃখে বাকি জীবন না মরে বেঁচে থেকে কাটিয়ে দেয়।

আজ আপনাদের এমন কিছু উপায় বলবো যার সাহায্যে আপনি পেতে পারেন জীবনের যে কোন সমস্যা থেকে সমাধান। সেটি হল – ভগবান শিবের এক মন্ত্র, যা প্রতিদিন বলে শিবের আরাধনা করলে আপনার জীবনে সমস্ত শান্তি ফিরে আসবে। এই মন্ত্র বলে পূজো করার কিছু নিয়ম আছে। আসুন জেনে নিন সেগুলি কি …

১। প্রতিদিন স্নান করে পরিষ্কার বস্ত্রে পবিত্র হয়ে ১০৮ বার শিবের মন্ত্র উচ্চারণ করুন। হিন্দু শাস্ত্রে লেখা আছে এরকম রোজ করলে কোন দুঃখ থাকেনা, জীবনে সুখ ভরে ওঠে। আপনার বাড়িতে যদি শিবলিঙ্গ থাকে তাহলে আপনি তার মাথায় জল ঢালতে ঢালতে মন্ত্র পাঠ করতে পারেন।

২। অবশ্যই ভগবান শিবের ছবিকে সামনে রেখে মন্ত্র পাঠ করবেন। ৩। শিবের পছন্দের ফুল দিয়ে তাকে সাজিয়ে তুলুন, তার পছন্দের ফুল হল ধুতুরা, নীলকণ্ঠ, কোলকে ইত্যাদি। শিবের পুজোয় বেল পাতা অবশ্যই ব্যবহার করুন, এতে শিব আপনার প্রতি সন্তুষ্ট হবেন।

৪। সময়ের সঙ্গে জপের সময় বাড়াবেন। এতে আপনারই উপকার। ৫। যোগী সাধু পুরুষেরা বলেন হাতে রুদ্রাক্ষের মালা নিয়ে জপ করলে নাকি শিব তাদের ওপর বেশি প্রসন্ন হন। কিন্তু এই ব্যাপারটি কতটা সত্যি তা যানা নেই।

মন্ত্রটি হল “ওঁ নম ভগবতে রুদ্রায়ও”, এই মন্ত্র হল শিবকে আরাধনা করার মন্ত্র। আপনার যদি মনে বিশ্বাস থাকে তাহলেই কাজ গুলি করুন, মনে অবিশ্বাস নিয়ে তাঁর আরাধনা করলে কোন ফল পাবেন না। হিতে বিপরীত হতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here