দুধওয়ালার কামের ফাঁদে বাড়ির বৌদি, বাড়িতে দুধ দেওয়ার নাম করে চলত কামের খেলা…

0
33177

প্রতিদিন বাড়িতে দুধ দিতে আসতো এক যুবক। সব সময় বাড়িতে সবাই থাকতো না, সেই সময়টাই বেছে নিয়েছিল সে। বাড়ি ফাঁকা থাকার সুযোগ নিয়ে ঠিক সেই সময়ই প্রায় প্রতিদিন আসতো সেই দুধওয়ালা আর সেই বাড়ির গৃহবধুর সাথে চালিয়ে যেত নির্যাতন। ঘটনাটা প্রথমে সবার কাছে অজানা থাকলেও সব ঘটনা সামনে আসে পুলিশি তদন্তের পর।

এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী জানা যায় গাজিয়াবাদের কবিনগরের এক গৃহবধূ এক যুবকের বিরুদ্ধে ধ’র্ষনের অভিযোগ এনেছেন। তার অভিযোগ হল এই যে, তাকে বাড়িতে এসে একাধিকবার ভয় দেখিয়ে শারীরিক সম্পর্ক করতে বাধ্য করা হয়েছে।

গৃহবধু বলেন যে অনেকদিন ধরেই ঐ যুবক তাদের বাড়িতে দুধ দিতে আসে। তার চোখের দৃষ্টি খুব খারাপ ছিল। অদ্ভুত ভাবে সে তাকিয়ে থাকতো তার দিকে। মহিলা অতটাও গুরুত্ব দেয়নি প্রথমে। কিন্তু যত দিন যেতে থাকে তার আচরণ ক্রমশ সন্দেহজনক হয়ে ওঠে। তারপর ধীরে ধীরে তার স্পর্ধা ছাড়িয়ে যেতে লাগে।

অভিযুক্তের নাম হল রোহিত বর্মা। ওই মহিলা জানিয়েছেন যুবকটি নতুন বাইক কিনে তাকে চড়ার প্রস্তাব দেয়। তারপর তাকে জোড় করে বাইকে করে ঘুরতে নিয়ে যায়। ঘুরতে গিয়ে রোহিত তাকে কিছু পানীয় খাওয়ায়। আর সেই পানীয় খাওয়ার পর বেহুঁশ হয়ে পড়ে সেই মহিলা।

আর তখনই সুযোগ বুঝে তাকে ধ’র্ষন করে ঐ যুবক। আর শুধু ধ’র্ষন নয় অ’শ্লীল ভিডিও বানিয়ে রেখে দেয় রোহিত। তারপর থেকে ওই ভিডিও ফাঁস করে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে একাধিকবার তার সাথে মিলনে লিপ্ত হয়। তাই স্বাভাবিকভাবেই মহিলা বাধ্য হয়ে তার কথায় রাজি হত।

গৃহবধূ আর বেশিদিন এই ঘটনা সহ্য করতে না পেরে সব ঘটনা জানায় তার স্বামীকে। তারপর সাহায্য চেয়ে সব ব্যাপার জানায় পুলিশকে। পুলিশকে সব ঘটনা জানানোর পর রোহিতকে গ্রেফতার করা হয়। ঘটনার তদন্ত চলছে এখন কবিনগর থানায়।

এভাবে প্রতিদিন কত মেয়েকে নিজের সম্মানের ভয় করে তুলে দিতে হয় কোন অমানুষের হাতে। মেয়েদের ভয় দেখিয়ে আরো কতরকম বাজে নোংরা কাজ করানো হয়, তার খবর হয়তো কেউ রাখেনা। সব মেয়েদের উচিৎ ভয় না পেয়ে সাহসের সঙ্গে এইসব অনাচারের বিরুদ্ধে লড়াই করা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here