না দেখেই বিয়ে, বাসর ঘরে পাত্রিকে দেখে মাথা ঘুরে গেলো পাত্রের, বিষয়টি জালনে চমকে যাবেন…

0
7444

বিয়ের আগে দেখাশোনার সময় পাত্রীর প্রশংসা শুনেই মুগ্ধ হয় পাত্র। তাই মেয়েকে না দেখেই বিয়ে করে নিয়েছে পাত্র। সে ঠিক করেছিল বাসর রাতেই প্রথম দেখবে নিজের স্ত্রীর মুখ। কিন্তু বিপত্তি ঘটল সেই রাতেই। রাতে নিজের স্ত্রীর ঘোমটা তুলতেই দেখল বউ কালো। বউ তার স্বপ্নের নারী নয়, যা আশা করেছিল বউ সেইরকম হয়নি। তখনই সে বউয়ের কাছে আর থাকবে না বলে ঠিক করে।

সে ঘর ছেড়ে বেরিয়ে যায়। স্বামী আর আসছেনা দেখে স্ত্রী নিজেই তার স্বামীর কাছে গিয়ে তাকে বলল, ‘ওগো! তুমি যা অপছন্দ করছো, হয়তো তাতেই তোমার কল্যাণ নিহিত আছে, এসো।’ এই বলে সে স্বামীকে নিজের কাছে নিয়ে আসে।

তারপর তারা একসঙ্গে রাত্রিযাপন করে। পরদিন সকালে ছেলেটি যখন মেয়েটিকে দেখে তখন রূপ দেখে তার মরে যেতে ইচ্ছা করে। তখনি সে বাড়ি থেকে বেরিয়ে বিদেশে যাত্রা করে। আর ফিরে আসেনা নিজের বাড়িতে। বিদেশে গিয়ে জীবন যাপন করে সুখে শান্তিতে।

কিন্তু সে জানতেই পারেনা তার স্ত্রী সেই বাসর রাতেই গর্ভবতী হয়। সেই ছেলেটির নাম হল নাসিম, আর মেয়েটির নাম হল ফতেমা। তারপর কেটে গেছে দীর্ঘ কুড়ি বছর। নাসিম এত বছর পর নিজের দেশে ফেরে। ফিরেই সে নিজের শহরে বাড়ির কাছে মসজিদে যায়। গিয়ে দেখে একটি সুদর্শন ছেলে কোরান পাঠ করছে।

সেই পাঠ শুনে সবার মন বিগলিত হয়। নাসিম সবার কাছে এই গুনী ছেলেটির নাম জানতে চায়। তখন একজন বলেন যে ছেলেটির নাম ইমাম। তখন নাসিম জানতে চায় তার বাবা কে। তখন সে যানে যে ছেলেটির বাবার নাম নাসিম। যে কুড়ি বছর আগে সংসার ছেড়ে চলে গেছে।

তখন আবেগে ভেসে গিয়ে নাসিম ইমামকে তার বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার অনুরোধ করে। আর বলে যদি তার মা অনুমতি দেয় তাহলেই সে বাড়িতে প্রবেশ করবে।

নাসিম বলে ”তুমি তোমার মাকে গিয়ে বলো দরজার বাইরে একটি লোক দাঁড়িয়ে আছে আর তিনি আমায় বলেছিলেন তুমি যা অপছন্দ করছো, হয়তো তাতেই তোমার কল্যাণ নিহিত আছে।’’

এই কথা শোনার পর ইমামের মা বলেন ”ইমাম এই তোমার বাবা, জাও তাকে সসন্মানে ভিতরে নিয়ে এসো। উনি দীর্ঘদিন বিদেশে থাকার পর ফিরে এসেছেন। এই হল এক মায়ের গল্প। রূপবতী না হলেও সে গুনবতী বটে। তিনি হলেন মানুষ গড়ার কারিগর।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here