রাগের চোটে বাসর রাতে বউ কে ছেড়ে পালিয়ে গেলো পাত্র। শেষে নববধূর প্রায় মরা কান্না অবস্থা…

1
13975

পৃথিবীতে এমন কিছু ঘটনা ঘটে যা মানুষের জীবনে নজির সৃষ্টি করে যায়। অনেক ঘটনা এইরামও আছে যা আমাদের সুস্থ মস্তিস্কের ভাবনা চিন্তার বাইরে। তেমনই এক ঘটনার সাথে আজ আমরা পরিচয় করাবো যা আপনারা কল্পনাও করতে পারবেন না। এটি এক বিবাহের ঘটনা, গুনের মহে বিয়ে করে এক ভয়ঙ্কর ঘটনার সম্মুখীন হতে হয়েছে এক যুবককে।

স্ত্রীকে কখনও চোখে দেখেনি এই যুবক। শুধু মাত্র তার গুনের কথা শুনে মুগ্ধ হয়ে প্রেমে পরে যায় সে। তারপর বসে পড়ে বিয়ের পিড়িতে। কিন্তু স্ত্রীর ঘোমটা তোলার সাথে সাথে সে অবাক হয়ে যায়। ভাবতে থাকে অবাক হয়ে এ কি দেখছে সে।

তার স্বপ্নের রাজকন্যা যার ব্যাপারে এতোদিন সে শুনে এসেছে সে ফর্সা না কালো। এমনটাও যে হতে পারে সেটা সে কখনোও কল্পনা করতে পারেনি। মনের দুঃখে বাসর ঘর ত্যাগ করে সেই যুবক। স্ত্রী ব্যাপারটা বুঝতে পারে এবং তার স্বামিকে বুঝিয়ে নিয়ে আসে ঘরে।

তাকে ভালোবাসে এবং মন ভোলানর চেষ্টা করাতে তার সাথে রাত কাটায় যুবক। কিন্তু সকালে উঠে আবার সেই কুৎসিত মুখ দেখে মন খারাপ হয়ে যায় যুবকের। মনের দুঃখে বাড়ি ছেরেই চলে যায় সে। বিদেশে জীবনযাপন শুরু করে সে।

দীর্ঘ কুড়ি বছর পর নিজের শহরে ফিরে আসে সে। এসে প্রথমেই নিজের বাড়ির কাছে তার সেই প্রিয় মসজিদে ঢোকেন। ঢুকেই তিনি দেখতে পান সুন্দর দেখতে একটি ছেলে পবিত্র কোরানের মর্মস্পর্শী দরস সেখানে পেশ করছেন। আর বিশাল মসজিদ ভরা সমস্ত মানুষ পরম আকর্ষণে তা তাঁদের হৃদয়ে গেঁথে নিচ্ছেন।

হৃদয়গ্রাহী দরস শুনে মন নরম হয়ে যায় তার। লোকদের কাছে থেকে এই গুণী মুফাসসিরের নাম জানতে চাইলে তারা বলেন, ইনি ইমাম মালেক। এরপর সে জানতে পারে এটা তারই পুত্র। তারপর ছেলেটির কাছে গিয়ে সে বলে –

‘পুত্র আমি তোমার ঘরের দরজার সামনে দাঁড়িয়ে থাকবো, আর তুমি ভেতরে গিয়ে তোমার মাকে বলবে যে, মা দরজার বাইরে একজন লোক দাঁড়িয়ে আছেন এবং এটাও বলবে যে মা তুমি একসময় তাকে বলেছিলে, তুমি যা অপছন্দ করছো, হয়তো তাতেই তোমার কল্যাণ লুকিয়ে আছে।’

এই কথাটি শোনার পরেই ইমাম মালেকের মা তাকে বললেন, হে মালেক! দৌঁড়ে যাও, সম্মানের সঙ্গে তুমি ওনাকে ভেতরে নিয়ে আসো, উনিই তোমার বাবা। দীর্ঘদিন যাবৎ অন্য দেশে থাকার পর উনি নিজের দেশে ফিরে এসেছেন।

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here