স্বামী থাকে বিদেশে, এই বৌদির কাজ হল সন্ধ্যে হলেই পাড়ার সকল যুবকদের যৌ-ন সুখ দেওয়া…

0
63796

স্বামী স্ত্রীর সম্পর্ক হল পৃথিবীর সবচেয়ে মধুর একটি সম্পর্ক। সুখে দুঃখে, হাসি কান্নায় সর্বদা একে অপরের পাশে থাকার অঙ্গীকার করা। বাবা মায়ের পরেই যার সাথে সব থেকে গভীর বন্ধন তৈরী হয় সে হল জীবনসঙ্গী। একে অপরের পরিপূরক। একজন অপরজনকে ছাড়া অসম্পূর্ন। কিন্তু এই স্বামীর সাথেই যদি স্ত্রী বিশ্বাসঘাতকতা করে তাহলে কেমন হয় ব্যাপারটা ?

হ্যাঁ, ঠিক এরকমই ঘটনা ঘটেছে মুর্শিদাবাদ জেলায়। এরকম ঘটনা প্রায়ই ঘটেই থাকে কিন্তু ধরা পরেনা বা সকলের অজানা থেকে যায়। ভারতীয় দন্ডবিধিতে এখন পরকীয়া বৈধ। আর সেই সুযোগ নিয়ে অনেকেই অনাচার চালিয়ে যাচ্ছে রোজ।

কিছুদিন আগেই সুপ্রিম কোর্ট পরকীয়াকে বৈধতা দিয়েছে। তার ঠিক পরেই এরকম একটি খবর পাওয়া গেছে। সেই ঘটনা ঘটেছে মুর্শিদাবাদের এক জায়গায়। খবর এরকমই, জানা যাচ্ছে যে স্বামীর অনুপস্থিতিতে দিনের পর দিন পাড়ার অন্য ছেলেদের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করে স্বামীকে ঠকাচ্ছে সেই মহিলা।

তার স্বামী কর্মসূত্রে থাকে অন্য দেশে। বছরে মাত্র দুই থেকে তিনবার আসে বাড়িতে। আর তার বউ গ্রামের বাড়িতে একা থাকে। সেই সুযোগে বিভিন্ন ছেলের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে জড়িয়েছেন সেই মহিলা। স্বামী না থাকায় শরীরের জ্বালা মেটাতে কম বয়সি ছেলেদের স্মরনাপন্ন হয় সে।

আর এইভাবে একে একে অনেকের সাথে সম্পর্কে জড়িয়ে যায়। পাড়ার অনেকেরই চোখে পড়েছে এই ঘটনা। অনেকে তাকে দেখে বাজে ইঙ্গিত করে। কিন্তু সে কোন কথা গায়ে না মেখে তার কাজ খোলাখুলি ভাবে চালিয়ে যেতে থাকে।

ঐরকম খারাপ চরিত্রের মেয়েকে গ্রামে থাকতে দেওয়া হবেনা বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন গ্রামের মাথারা। কিন্তু তার স্বামী সেখানে থাকেনা বলে তাকে তাড়িয়ে দেওয়া সম্ভব হয়নি। ইতিমধ্যে গ্রামের কিছু লোক খবর পৌঁছে দেয় তার স্বামীর কাছে।

আর তার স্বামী বুদ্ধি করে তার স্ত্রীকে হাতে নাতে ধরার জন্য তাকে কোন খবর না দিয়েই চলে আসে তার গ্রামের বাড়িতে। সেখানে এসেই ধরে ফেলে তার গুনধর স্ত্রীর কান্ড কারখানা। জেনে যায় তার অবৈধ সম্পর্ক সম্বন্ধে। সেই সব জানার পর খুব ঝামেলা অশান্তি হতে থাকে।

শেষ পর্যন্ত তার স্ত্রীকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। এখন পুলিশ নিজেদের মতো তদন্ত করছে। আর ছেলেটি সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিবাহ বিচ্ছেদের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here