করোনা হেল্পলাইনে ফোন করে সিঙ্গারার অর্ডার দিলেন, চরম শাস্তি দিল প্রশাসন

0
298

করোনা নিয়ে সারা দেশ ভয়ে কাঁটা হয়ে রয়েছে। দিনে দিনে বাড়ছে করোনার প্রভাব। মহামারীর আকার ধারন করেছে করোনা ভাইরাস। করোনা ভাইরাসের মারণ থাবায় জর্জরিত সারা দেশ। সারা বিশ্বে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৬ লক্ষ্য ছাড়িয়েছে। মৃত্যু হয়েছে ৩৩ হাজারের মত। দিনে দিনে আক্রান্তের সংখ্যা ও মৃতের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। একই ভাবে ভারতেও দিনে দিনে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে চলেছে দিনে দিনে। এখনও পর্যন্ত ভারতে আক্রান্তের সংখ্যা ১৩০০ ছাড়িয়েছে। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৪৬ জনের। অবশ্য সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৩৮ জন।

যে হারে ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে তাতে চিন্তিত প্রশাসন থেকে সাধারন মানুষ। করোনা রুখতে ২১ দিনের লকডাউন জারি করা হয়েছে সমগ্র ভারতে। ভারতের সমস্ত রাজ্যে লকডাউন জারি রয়েছে। এই লকডাউনে সমস্ত গণপরিবহন বন্ধ রাখা হয়েছে। শুধু মাত্র অত্যাবশ্যক পন্য পরিষেবায় ছাড় রয়েছে।
লকডাউনে সাধারন মানুষের যাতে অসুবিধা না হয় তার দিকে খেয়াল রাখছে প্রশাসন। অতি জরুরী পরিষেবা চালু রাখা হয়েছে প্রশাসনের তরফে। সমস্ত রাজ্যেই হেল্পলাইন চালু করা হয়েছে যাতে কোনো জরুরী পরিষেবায় অসুবিধা না হয় সাধারন মানুষের।
এবার সেই জরুরী হেল্পলাইনে আজব আবদার করলেন এক ব্যাক্তি যার ফলে তাকে চরম শাস্তির মুখেও পড়তে হয়েছে। অন্যন্য রাজ্যগুলোর মত উত্তরপ্রদেশেও চালু করা হয়েছে হেল্পলাইন জরুরী পরিষেবার জন্য। রামপুর জেলার এক বাসিন্দা ওই হেল্পলাইন নম্বরে ফোন করে বলেন তার বাড়িতে সিঙ্গারা পৌঁছে দিতে। বারবার ফোন করে বিরক্ত করতে থাকে, স্বাভাবিকভাবেই রেগে যান পরিষেবাকর্মীরা। এরপরেই খবর যায় জেলাশাসকের কাছে। এরপরে জেলাশাসক উচিত শিক্ষা দেন ওই ব্যাক্তিকে। প্রথমে তার বাড়িতে সিঙ্গারা পৌঁছে দেওয়া হয় এরপর তাকে ড্রেন পরিস্কার করার নির্দেশ দেওয়া হয়। এই পরিস্থিতিতে এরকম মজা করার জন্য তাকে ড্রেন পরিস্কার করার নির্দেশ দেওয়া হয় আর তা পালন করতে বাধ্য হন ওই ব্যাক্তি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here