বাচ্চা তৈরির কারখানা, এখানে মেয়েদের জোর করে কিভাবে প্রেগনেন্ট করা হয় তা দেখলে চমকে যাবেন……

0
5060

একবিংশ শতকের আধুনিকতায় অনেকেই সন্তান ধারন করতে চান না। তারা সন্তান অবশ্যই চান, কিন্তু সন্তান ধারন করতে ইচ্ছুক নন। এই ধরনের মানসিকতা দেখা যায় বেশীরভাগ সেলিব্রিটিদের মধ্যে। তারা নিজেদের শারীরিক সৌন্দর্যতা ধরে রাখতে মাতৃত্বকে বলি দেন। তারা তার বদলে সন্তান দত্তক নিতে চান। সেই বাচ্চা তারা দত্তক নেন কোন অনাথ আশ্রম বা হাসপাতাল থেকে।

আমরা অন্তত সেইটুকুই জানি। কিন্তু জানেন কি বাচ্ছা উৎপাদন করা হয় ? হ্যাঁ, এরকমটাই হয়ে আসছে বহুদিন ধরে আফ্রিকার নাইজেরিয়ায়।

সেখানে জোর করে মেয়েদের সন্তান ধারন করানো হয়। তারপর সেই সন্তানের জন্ম হলে মোটা টাকার বিনিময়ে তাকে বিক্রি করে দেওয়া হয়। যাকে বলা হয় বেবি ফার্ম। মানুষের মতো নিষ্ঠুর প্রাণী বোধয় হয়না। একমাত্র মানুষই পারে এরকম নির্মম হতে।

মুরগি ফার্ম, গরু ফার্ম ইত্যাদি অনেক পশুর ফার্মের কথা অনেকেই শুনেছেন। কিন্তু বেবি ফার্মের কথা হয়তো এই প্রথম বার শুনছেন সবাই। হয়তো শুনে সবাই অবাক হবেন কিন্তু এটাই সত্যি। কিছু ঘৃন্য মানুষ এরকম কাজই করেন। এখানে ঠিক কি কি হয় জেনে নিন ঃ

এখানে মেয়েদের প্রায় জোড় করে গর্ভবতী করা হয়। মেয়েগুলিকে আনা হয় বেশিরভাগ অনাথ আশ্রম থেকে বা ভীষণ গরীব পরিবার থেকে। টাকার জন্য মানুষ কি না করে। তাই কিছু মেয়ে টাকার প্রয়োজনে এই কাজ করতে বাধ্য হয়। আবার কাউকে ভয় দেখিয়ে এই কাজ করতে বাধ্য করা হয়।

মোটা টাকার লোভে অনেক মেয়ে রাজি হয়েও যায়। এই কাজে ব্যাবহার করা হয় নাবালিকা মেয়েদের। তাদের একজনেরও বয়স ১৮ এর বেশি নয়। তাদের ওপরেই দিনের পর দিন চলতে থাকে অমানবিক অত্যাচার। এই রকম কাজ করার পর সেই মেয়েরা মানসিক ভাবে প্রচণ্ড ভেঙ্গে পড়ে।

এই অবলা মেয়েদের কাজে লাগিয়ে প্রচুর লাভ করে ফার্মগুলির মালিক। বাচ্ছাগুলিকে বিক্রি করা হয় নিঃসন্তান দম্পতিদের কাছে। আর বিনিময়ে সাত থেকে আট লক্ষ টাকা নেওয়া হয়। যারা সন্তান ধারনে অনিচ্ছুক তাদেরকেও বিক্রি করে দেওয়া হয় এই সন্তান।

নাইজেরিয়ায় এই ব্যাবসার রমরমা এই কারণে যে সেখানে অ্যাবরশন আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ। তাই এই সুযোগটিকেই কাজে লাগায় বেবি ফার্মের মালিকরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here