নিজের বোনকে বিয়ে করল জ্যাঠতুতো দাদা। শিবপুরের এই ঘটনা চাঞ্চল্য ছরিয়েছে চারিদিকে…

0
39623

বিবাহ হল দুটি মনের মিলন। বিয়ে মানে শুধুই মন্ত্র পড়ে সাতপাক ঘুরে সিঁদুর দান করা নয়। বিয়ে হল সারা জীবনের বন্ধন। একটা বিয়েতে স্বামী স্ত্রী দুজনেরই দায়বদ্ধতা থাকে। স্বামীর দায়িত্ব হল সারা জীবনের জন্য নিজের স্ত্রীর দায়িত্ব নেওয়া। আর স্ত্রীর দায়িত্ব হল সুখে দুঃখে স্বামীর পাশে থাকা। দুজনে দুজনের ভালো মন্দ সব কিছু মানিয়ে নিয়ে পাশে থাকার অঙ্গীকার করা।

খারাপ সময়ে পাশে থেকে ভরসা দেওয়ার নামই হল বিবাহ। তাই বিয়ের সিদ্ধান্ত সর্বদা ভাবনা চিন্তা করে নিতে হয়। যদি বিয়ের সিদ্ধান্ত ভুল নেওয়া হয় তাহলে সারা জীবনের জন্য মাশুল গুনতে হয়। এখনকার দিনে প্রেম করে বিয়ে করা হল একটি চল।

অনেকেই আজকাল প্রেম করে বিয়ে করছে। কেউ সুখি হয় আবার কেউ সুখি হয়না। এখন একটা ছেলের একটা মেয়েকে ভালো লাগতেই পারে। সেটা খুব অস্বাভাবিক কিছু নয়। কিন্তু সেই মেয়ে যদি হয় নিজের রক্তের সম্পর্কের তাহলে সেটা কিন্তু একদম ঠিক নয়।

সেরকম এক ঘটনা ঘটলো হাওড়ার শিবপুরে। নিজের পরিবারের মেয়েকে বিয়ে করলেন এক বছর ২৫ এর যুবক। সেই যুবকের নাম হল সোমনাথ। সে হঠাত একদিন বিয়ে করে নিয়েএলো নিজের জ্যাঠার মেয়েকে। মেয়েটির নাম সায়নী। সোমনাথ এবং সায়নী সম্পর্কে ভাই বোন।

ছোট থেকে বড় হয়েছে একসঙ্গে। যৌবনে পদার্পন করার সঙ্গে সঙ্গে একে অপরকে ভালো লাগতে শুরু করে। তারা দুজন দুজনকে অন্য দৃষ্টিতে দেখা শুরু করে। তাদের এলাকার কিছু লোকের কাছে জানা গেছে যে, সোমনাথ ও সায়নীকে মাঝে মাঝেই রাস্তায় ঘুরতে, সিনেমায় যেতে দেখা গেছে।

কেউ সেই ব্যাপারটিকে খারাপ চোখে দেখেনি কারন তারা সম্পর্কে ভাই বোন। তারা ছোট থেকেই একসাথে বড় হয়েছে, একসাথে খেলা করেছে। কিন্তু এই খেলা যে বিয়ে পর্যন্ত এগোবে সেকথা কেউ স্বপ্নেও ভাবতে পারেনি। গত ১৫ই জানুয়ারি বিয়ে করে তারা। সেই বিয়ের খবর পেয়ে বাড়িতে সবার মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়ে।

তারা কখনো ভাবতে পারেনি যে দুই ভাই বোন মিলে এই কান্ড ঘটিয়ে বসবে। তাদের বাবা মা প্রচন্ড ভেঙ্গে পড়ে এবং বাড়ি ছেড়ে অন্য আত্মীয়ের বাড়ি চলে যায়। এখন জানা গেছে তারা বাড়ি ছেড়ে কলকাতায় কোথাও বাড়ি ভাড়া করে সংসার করছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here