জীবনের গান-গল্পে শান্তনুর সাথে ঘন্টা দেড়েক আড্ডায়…

0
112

মানুষ মানুষের উপর বিশ্বাস হারিয়ে ফেলছে খুব দ্রুত এই পৃথিবীতে। ছুটে চলতে চলতে হারিয়ে ফেলছে নিজেকে। বেড়ে ওঠা EMI তে চাপা পড়ে ভুলে যাচ্ছে পৃথিবী কত সুন্দর। এই সময় 3 idiots এর র্যাঞ্চর মত কাউকে দরকার। যে মনকে বোঝাবে ‘আল ইজ ওয়েল।’ ৮ই সেপ্টেম্বর রবিবার এমনই একটা দিন। আর্টস একর নিউটাউনে সেদিন আসছেন শান্তনু মৈত্র। গল্প আর আড্ডা নিয়ে । দেড় – দু ঘন্টার গল্পে উঠে আসবে তার জীবনে জাদুকাঠির ছোঁয়া দিয়ে যাওয়া মানুষদের কথা।ভবঘুরে জীবনের কথা। হিমালয়ের কথা। অন্য সব শহরে নিজের এই জাদু গল্পের ঝুলি নিয়ে যখনই গেছেন শান্তনু, মানুষ মুগ্ধ হয়েছেন অভিজ্ঞতায়। সমৃদ্ধ হয়েছেন। বুঝেছেন পৃথিবীটা খুব বাজে ভেবে এড়িয়ে যাওয়ার জায়গা নয়। শান্তনুকে তার নিজের তৈরি করা গান দিয়ে বোঝাতে হলে বলতে হয়-
‘Behti hawa sa tha wo
Urti patang sa tha wo..’

শেষ কয়েকটি টিকিট সংগ্রহ করতে ক্লিক করুন –

http://bit.ly/Shantanu-moitra-100-days

http://bit.ly/Shantanu-moitra-100-days-insider

bit.ly/Shantanu-Maitra-100-days-Paytm

সেই উড়ে চলা ঘুড়ির মতোই শান্তনু মৈত্রের এগিয়ে চলা জীবনের পথ ধরে। সুরকার শান্তনুকে আমরা সবাই চিনি। কিন্তু তার ঝুলিতে পড়ে থাকা জীবনের অসংখ্য ছবি থেকে যায় অজানা। ‘ভয় ছেঁটে ফেলে জীবনটা বাঁচতে হয়, জীবন আসলে একটা সেলিব্রেশন।’ এই বোধটা নিয়ে তিনি এগিয়ে যান অচেনা পথে, অজানা লক্ষ্যে। আর তাকে ছুঁয়ে চলে যায় বেশ কিছু মানুষের মনের ঐশ্বর্য্য। সে এক পাহাড়ি শেরপা হোক অথবা জয়সলমির স্টেশনে বসে থাকা কোন বন্দী। এক পাহাড়ি চা ওয়ালা যখন গোটা রাত হেঁটে ফেরত দিতে আসে হারিয়ে যাওয়া মানিব্যাগ,শান্তনুর সাথে সাথে আমরাও বিশ্বাসী হয়ে পড়ি মানবতায়। মাথার ভিতর শুধু ডাক শুনে নেপালের দুঃখী মানুষকে সাহায্য করতে বেরিয়ে পড়ে যে মানুষ তাকেও তো শান্তনু দেখেছেন সামনা সামনি।তিনি বুঝেছেন স্বপ্ন শব্দটার মানে। তাই স্বপ্ন খুঁজতে বেরিয়ে পড়েন বারবার।তার সুরেও তাই অনায়াসে জড়িয়ে যায় স্বপ্নগুলো। মাঝে মধ্যে পথ চলার সুর এলোমেলো হয়ে পড়লে আমরা হারিয়ে যেতে থাকি। অথচ শান্তনু বিশ্বাস করেন পথ হারালেই বেজে ওঠে সুর –
‘Deep in my heart, I do believe,
We shall overcome someday.’
এই বিশ্বাসের কথাই তিনি লিখেছিলেন নিজের ‘ফেরারি মন’ বইটাতে।মানুষেও উপর বিশ্বাসের কথা, নিজের উপর বিশ্বাসের কথা।
এহেন মানুষ যখন গিয়ে পড়েন হিমালয়ের অজানা পথে, তিনি কি গল্প না নিয়ে ফিরে আসতে পারেন? ৮ই সেপ্টেম্বরের অনুষ্ঠানের প্রথমার্ধে থাকছে ফেরারি মন নিয়ে গল্প। দ্বিতীয়ার্ধে হিমালয়। বাঙালি যে জায়গায় জড়ো হবে আড্ডায় সেখানে কি খাবার না থেকে পারে? তাই এদিনের আড্ডায় সাথে থাকছে লাঞ্চ।
আসুন, তার বিশ্বাসের গল্প ছুঁয়ে আমরাও বিশ্বাস করতে শিখি মানুষকে। বিশ্বাস করতে শিখি পৃথিবীর সবটুকু ভালো। আর মাত্র ৪০টি টিকিট বাকি অনুষ্ঠানের। আপনি আসছেন তো?

Rediscover Shantanu MoitraBook my show- bit.ly/Shantanu-moitra-100-daysInsider-http://bit.ly/Shantanu-moitra-100-days-insiderPaytm- bit.ly/Shantanu-Maitra-100-days-Paytm

Posted by Kriti on Tuesday, August 20, 2019

Article সৌজন্যে – Bengal Web Solution ( 9903360341)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here